শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৬:০৩ অপরাহ্ন
ই-পেপার
সংবাদ শিরোনাম
সংবাদ শিরোনাম
আসন্ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান হিসাবে আবারো শহিদুল ইসলাম টুলুকে চাই রিশিকুল ইউপি বাসী জনগণের পাশে থেকে কাজ করার সুযোগ চান চেয়ারম্যান প্যার্থী আব্দুস সালাম খুলনায় ডিবি পুলিশের বিশেষ অভিযানে ফুলতলা থানা এলাকা হতে ১০০(একশত) গ্রাম গাজা সহ ০১ (এক) জন গ্রেফতার আগৈলঝাড়ায় শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে জনপ্রিয়তায় শীর্ষে, সৎ এবং যোগ্য প্রার্থী হিসেবে আকবর আলী’র এর বিকল্প নেই সিঙ্গাপুরে দীর্ঘদিন চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে দেশে ফিরেছেন শেখ মারুফ নিখোঁজের চারদিন পর বৃদ্ধের লাশ উদ্ধারঃ মধুপুরের মহিষমারা ইউনিয়নে নির্বাচনী মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা মোবাইল ফোনের ফোরজি ও থ্রিজি সেবা বন্ধ পুরো বাংলাদেশে রুপসা মহাশ্মশান ও কালি মন্দির থেকে ১৮ টি তাজা শক্তিশালী ককটেল বোমা উদ্ধার

আগৈলঝাড়ায় লকডাউন ঢিলেঢালা যেন চোর-পুলিশ খেলা

প্রতিনিধি নাম: / ৩৯ বার
সময় : শনিবার, ১০ জুলাই, ২০২১, ৩:৫৪ অপরাহ্ন

 

নিউজ ডেস্ক ঃ
বরিশাল জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার গত চার দিন যাবত উচ্চহারে করোণার আক্রান্ত বৃদ্ধি পেয়েছে। গত চার দিনে করোনার আক্রান্তের হার প্রায় ৭৪%। কিন্তু সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনের দশম দিনে লকডাউনের তেমন লক্ষ করা যায়নি। কঠোর লকডাউনের প্রথম সপ্তাহে মোটামুটি কঠোরভাবে পালিত হলেও দ্বিতীয় সপ্তাহের তৃতীয় দিনে তেমন কোনো লক্ষ্য করা যায়নি। বেশিরভাগ দোকানপাট খোলা ছিল বড় শপিং মল বন্ধ থাকলেও আগৈলঝাড়া উপজেলার বিভিন্ন স্থানে দোকানপাট খোলা লক্ষ করা যায়। কাঁচা বাজার নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি (মুদি দোকান) প্রচুর লোক সমাগম ছিল।

গত চার দিনে আক্রান্তের হার প্লায় ৭৪% এর মত। কিছু কিছু এলাকায় কঠোর বিধি-নিষেধ মানতে দেখা গেলেও প্রায় জায়গায় ঢিলেঢালাভাবে লকডাউন পালিত হচ্ছে।

আগৈলঝাড়া উপজেলা স্বনামধন্য নির্বাহি অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জনাব আবুল হাসেম সাহেবের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিদর্শনকালে দোকানপাট বন্ধ থাকলেও পরবর্তীতে আবার খুলে। এভাবেই যেন চোর-পুলিশ খেলা হচ্ছে।

এলাকায় এখনও সেনাবাহিনী বিজেপি লক্ষ করা যায়নি। উপজেলা প্রশাসন ও থানা প্রশাসন অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তথাপি মানুষের ভিতরে সচেতনতার অভাব রয়েছে।

এলাকাবাসী জানান এ লকডাউন তেমন কোন কাজে আসছে না বরঞ্চ মানুষের আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে। অনেকের কাজ বন্ধ তাই সংসার চালাতে খুবই কষ্ট হচ্ছে। অথচ বিধি-নিষেধ যেভাবে মারার কথা ছিল সে ভাবে কেউ এই মানছে না। এলাকা রেডজোন খ্যাত হলেও স্বাস্থ্য বিধি মানার ও মানুষের ভিতরে সচেতনতা তেমন সৃষ্টি হয়নি।

এলাকার সচেতন মহল মনে করেন যত লকডাউন দেওয়া হোক মানুষের মধ্যে যদি সচেতনতা না থাকে তাহলে কোন কাজে আসবে না। মাক্স পড়ার প্রবণতা সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে চলা। অকারনে ঘর থেকে বাহির হওয়া, স্যানিটাইজার ব্যবহার করা এগুলি নিজেদের সচেতন হতে হবে। এগুলি মানুষের ভিতরে সচেতনতা না আসলে লকডাউন এর সুফল আসবে না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর....

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
১,৫৬৫,১৭৪
সুস্থ
১,৫২৭,৩৩৩
মৃত্যু
২৭,৭৫২
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
২৯৩
সুস্থ
৪৪২
মৃত্যু
স্পন্সর: একতা হোস্ট
এক ক্লিকে বিভাগের খবর